সাত সকালে দুয়ারে প্রাক্তন বিধায়ক, তীব্র তাপদাহ থেকে মুক্তি পেতে সকাল সকাল ভোট প্রচার রানাঘাট দক্ষিণ এ প্রাক্তন বিধায়ক তৃণমূল প্রার্থী ডাক্তার মুকুটমণি অধিকারীর

মলয় দে নদীয়া :-তীব্র তাপপ্রবাহের জন্য একেবারে সাতসকালে ভোট প্রচারে দুয়ারে প্রাক্তন বিধায়ক। রানাঘাট দক্ষিণ বিধান সভার শ্যামনগর অঞ্চলের বিভিন্ন জায়গায় ভোট প্রচার করলেন রানাঘাট উত্তর বিধানসভা উপনির্বাচনের তৃণমূল প্রার্থী মুকুটমণি অধিকারী। এদিন তার সঙ্গে ভোট প্রচারে উপস্থিত ছিলেন তৃণমূল কংগ্রেসের রানাঘাট সাংগঠনিক জেলার মহিলা তৃণমূলের সভানেত্রী বর্ণালী দে রায় এবং একাধিক তৃণমূল কর্মী সমর্থকেরা। এদিন ভোট প্রচারে বেরিয়ে বিজেপিকে কটাক্ষ করতেও ছাড়েননি তৃণমূল প্রার্থী।
এদিন তার আগমনের প্রাক্কালে কর্মী সমর্থকদের মধ্যে উচ্ছ্বাস ছিলো চোখে পড়ার মতন।

দলীয় ফ্ল্যাগ ব্যানার পতাকা নিয়ে তারা প্রার্থীর প্রতীক্ষায় ছিলেন। এরপর কর্মী সমর্থকদের আগমনে পাড়া প্রচারে মিছিলে রূপ নেয়। এলাকার বিভিন্ন জনবহুল স্থান বাজার এলাকায় ক্রেতা বিক্রেতাদের সাথে কথাবার্তা বলেন তিনি মুখ্যমন্ত্রীর জন উন্নয়নে সামিল হওয়ার জন্য তাকে ভোট দেওয়ার আবেদন জানান।


প্রাক্তন বিধায়ক হওয়ার সুবাদে প্রত্যেক মানুষের কাছে তিনি পরিচিত যদিও এ বিষয়ে তিনি বলেন বিজেপি বিধায়ক থাকার কারনে, এ সরকারের ব্যাপক উন্নয়ন এবং জনমুখী প্রকল্প সাধারণ মানুষের থেকে তিনি তুলে দিতে পারেননি, তবে সাধ্যমতন চেষ্টা করেছেন।

আর সেই কারণে তিনি পরিচিত মুখ অন্যদিকে বিজেপি প্রার্থী সুদূর কৃষ্ণনগর থেকে আগত তাই তাদের কর্মী সমর্থকরা ও পর্যন্ত মেনে নিচ্ছেন না, সর্বোপরি নদীয়ার বর্শিয়ান নেতৃত্ব সংকর সিংহ এবারে সমগ্র ভোট প্রক্রিয়া পরিচালনা করছেন তাই বিগত লোকসভার নিরিখে যা কিছু ত্রুটি অসঙ্গতি ছিল তা এবারে আর থাকবে না, অন্যদিকে উপনির্বাচন সাধারণ ভোটারদের স্বতঃস্ফূর্ত সহযোগিতা থাকে শাসক দলের পক্ষে, আর এইসব নীলে তিনি জয়ের ব্যাপারে ১০০ শতাংশ নিশ্চিত।