শুধুমাত্র ছেলেধরা সন্দেহের বশে নদীয়ার বাদকুল্লার এই ছেলেটির, এ কি হাল…..

মলয় দে নদীয়া :- একদিকে ছেলেধরা, অন্যদিকে কুমিরের আতঙ্কে এখন অতিষ্ঠ গোটা নদীয়া…কিন্তু ঠিক তার মাঝেই, সবচেয়ে চিন্তার বিষয় হল, গোটা নদীয়াজুড়ে এখন ছেয়ে গিয়েছে ছেলে ধরার দল,…বারবার করে বাড়ি ছোট্ট ছোট্ট শিশুদের, বাইরে বের হতে নিষেধ করা হলেও, এবার সেই ছেলে ধরা আতঙ্ক গিয়ে পড়লো বাদকুল্লারই এক যুবকের ওপর….কিন্তু, সবচেয়ে আশ্চর্যের বিষয় হল, শুধুমাত্র আতঙ্কের ফাঁদে পড়ে এই যুবকের মর্মান্তিক পরিণতি….বাদকুল্লার স্টেশন পাশের এলাকায় একজন অপরিচিত যুবককে ঘোরাঘুরি করতে দেখে স্থানীয় বাসিন্দাদের সন্দেহ হয়।

এবং ওই যুবককে জিজ্ঞাসাবাদ করে কোন সৎ উত্তর না মেলায় ওই যুবককে ছেলেধরা সন্দেহ এলাকাবাসী তার ওপর চড়াও হয় ও মারধরও করা হয় বলে অভিযোগ। সেই সময় তাহেরপুর থানার পুলিশ গিয়ে ওই যুবককে উদ্ধার করে নিয়ে আসে তাহেরপুর থানায় ওই যুবকের কাছ থেকে জানা যায় ওই যুবকের নাম অংকুর রায় বাবা মানিক রায় বয়স ২৮বছর বাড়ি দক্ষিণ দিনাজপুরের করদহ গ্রামে ওই যুবক একজন বিএএমএস ফাইনাল ইয়ার স্টুডেন্ট বাবার সাথে বাড়ি ফিরছিল

কৃষ্ণনগর শংকর হোটেলের খাওয়া দাওয়ার পর ওই যুবক ট্রেনে করে বাড়ির দিকে যাওয়ার পথে ভুলবশত বাদকুল্লা স্টেশনে নেমে যায় এবং চিনতে না পারায় ঘোরাঘুরি করতে দেখে এলাকাবাসীদের সন্দেহ হতেও তাকে জিজ্ঞেস করা হয় এবং পুলিশের হাতে তুলে দেওয়া হয় আজ তাকে তার বাবার হাতে তুলে দেয়া হয় আমাদের সংবাদ মাধ্যমের পক্ষ থেকে অনুরোধ গুজবে কান দেবেন না এবং আইন নিজের হাতে তুলে নেবেন না । স্থানীয় পুলিশ প্রশাসনকে জানান, সহযোগিতা না পেলে সাংবাদিক মহলে খবর পৌঁছান।